ওয়াশিংটনে বাগডিসি’র প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানব বন্ধন
ওয়াশিংটনে বাগডিসি’র প্রতিবাদ সমাবেশ   
বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭

গত ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বৃহস্পতিবার, ওয়াশিংটন ডিসি’তে বাগডিসি’র (বাংলাদেশ এসোশিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি)  উদ্যোগে মিয়ানমার-এ রোহিঙ্গা গনহত্যার প্রতিবাদে এবং এই মানবিক সংকট নিরসনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এক প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন। এ প্রতিবাদ সমাবেশ আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য ছিল সাম্প্রতিক কালে ঘটে যাওয়া মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের উপর ঘটে যাওয়া  গনহত্যা ও অমানবিক অত্যাচারের প্রতিবাদ করা এবং এর আশু সমাধান করার জন্য ষ্টেট ডিপার্টমেন্ট, ইউনাইটেড নেশন্স, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা সহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনের দৃষ্টি আকর্ষন করা। সম্প্রতি গত কয়েরক সপ্তাহ আগে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের উপর অমানবিক অত্যাচার শুরু  হয়, যা শুধু বাংলাদেশই নয়, গোটে বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছে-  নির্বিচারে গুলি  করে হত্য করা হয় হাজারো রোহিঙ্গাকে, রোহিঙ্গা মহিলাদের উপর চালানো হয় মর্মান্তিক পাশবিক অত্যাচার,জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছার খার করে দেয়া হয় গ্রামের পর গ্রাম। প্রান বাঁচাতে ভিটে-মাটি ছেড়ে সহায়-সম্বলহীন অবস্থায় দুর্গম পথ পেড়িয়ে, নদী পথে জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রায় চার লাখেরও বেশী রোহিঙ্গা আশ্রয় গ্রহন করে বাংলাদেশে। এমন অত্যাচারের ইতিহাস অতীতকে সামনে টেনে নিয়ে আসে, স্মরণ করিয়ে দেয় ’৭১-এর গনহত্যাকে। “এটা মূলতঃ কোন ধর্মীয় বা রাজনৈতিক ইস্যু নয়- এটা একটি মানবিক ইস্যু এবং পুরো বিশ্বের এগিয়ে আসা উচিৎ এই গনহত্যারোধে”-  এটাই ছিল  বাগডিসি’র  প্রতিবাদের ভাষা।

দুপুর বারোটায় ওয়াশিংটন প্রবাসী বাংলাদেশীরা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সামনে কানেক্টিকাট এ্যভিনিউ সংলগ্ন উন্মুক্ত প্রান্তরে জমায়েত হতে শুরু করে । প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন এবং ব্যানার হাতে মিয়ানমারে সংগঠিত গনহত্যার বিরুদ্ধে সবাই একজোগে স্লোগান তুলে প্রতিবাদ জানায় এবং উপস্থিত গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ সকলেই   এই ঘৃন্য গনহত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন এবং অং সান সূচী ও তার নোবেল প্রাপ্তির বিষয়ে তীব্র সমালোচনা করা হয়। বিশেষ করে স্টেট ডিপার্টমেন্ট ও ইউনাইটেড নেশন্সের কাছে অনতিবিলম্বে গনহত্যা বন্ধের দাবীতে আবেদন জানান হয়। এর পর সবাই স্টেট ডিপার্টমেন্ট বিল্ডিং-এর সামনে উপস্থিত হয়ে আবার শ্লোগান তুলে প্রতিবাদ জানায় এবং স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তার কাছে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয় স্টেট সেক্রেটারী মিঃ টিলারসন-এর কাছে পৌছে দেয়ার জন্য ।
অতঃপর সেখান থেকে সবাই উপস্থিত চলে যান মিয়ানমার দূতাবাসের সামনে। একইভাবে মিয়ানমার দূতাবাসের সামনেও গনহত্যার প্রতিবাদ জানানো হয় শ্লোগান তুলে। দূতাবাসের অফিস ভবনের প্রধান দরজা বন্ধ থাকায় এবং কোন কর্মকর্তা বাইরে না আসায় সরাসরি তাদের হাতে স্মারকলিপি দেয়া সম্ভব হয়নি। শান্তিপূরন সমাবেশের মাধ্যমে সমাপ্ত হয় রোহিঙ্গাদের উপর গনহত্যা রোধে বাগডিসি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশ, যা ছিল ওয়াশিংটন প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য একটি মানবিক পদক্ষেপ।
আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে ওয়াশিংটন মেট্রো এলাকার অনেক সামাজিক-সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, পেশাজীবি, সাংবাদিকসহ অনেক প্রবাসী উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত অন্যান্য অনেকের   সাথে যারা এই সমাবেশে যোগ দিয়ে এই গনহত্যার প্রতিবাদে অংশ নিয়েছেন, তারা হলেনঃ জনাব মোহামদ আলমগীর, এ্যন্থনী পিউস গমেজ, নুরুল আমিন নুরু, রোকসানা পারভীন, পারভীন পাটোয়ারী, নাইম রহমান, আবু রুমী, আক্তার হোসেন, কবীর পাটোয়ারী, মোহাম্মদ মোস্তাফা, মাহমুদুন নবী বাকী, ডঃ মনসুর, রেদোয়ান চৌধুরী, নেসার আহমেদ, সুলতান চোধুরী, রোমিও হক, রফিকুল ইসলাম আকাশ, জীবক বড়ুয়া, শেখ সেলিম, আলতাফ হোসেন, জাকির চৌধুরী, জাহিদ রহমান, ডেলিগেট বেলাল আলী, মুনির হোসেন সহ আরও অনেকে।  

ওয়াশিংটনস্থ ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগে কর্মরত তাহিরা কিবরিয়া এই প্রতিবাদ সমাবেশের লাইভ ব্রডকাষ্ট করে বিশ্ববাসীর কাছে এই সমাবেশের সংবাদ তুলে ধরেন।
 
বাগডিসি’র কর্মকর্তা সহ উপস্থিত গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সবাই মানবিক কারনে আয়োজিত এই প্রতিবাদ সমাবেশে অংশগ্রহন করতে পেরে আনন্দিত হয়েছেন বলে জানান।
সর্বশেষ আপডেট ( বৃহস্পতিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ )