"ঊর্ব্বশী"
মিজানুর ভূঁইয়া, ভার্জিনিয়া থেকে   
শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারি ২০১৬

তোমার সারা দেহ এবং মন জুড়ে
উর্বরা ভূমির মতোই যেনো  
ভালবাসার সতেজ ফসলের সমারোহ।
তোমার মনের ভিতর ভালবাসার ঊর্মীমালা
যেভাবে দোলাচলে দুলতে থাকে
কিছুটা আভাস দেহ ভঙ্গিমায়ও পায় প্রকাশ। তোমার জাদুকরী চোখের চাহনী  
এক নিমিষেই তোমার মনের সব কথা বলে দেয়।
তোমার দিকে বার বার তাকিয়ে থাকা
আমার মধ্যে একটি নেশার জন্ম দিয়েছে।
আমি নিজেকে কেনইবা দোষ দেবো,
পৃথিবীর আর সকল প্রেম-পিয়াসী পুরুষই
তোমার দিকে একবার চোখ পড়লে, দ্বিতীয়বার
নিজের চোখ ও মনকে সামলাতে পারবেনা।
তুমি শুধু রূপ মাধুর্যেই মন কাড়োনা
তোমার কথার মধুরতম ছন্ধমালা এবং
জাদুকরি  ভঙ্গি তোমাকে করেছে তুলেছে অনন্যা।
কি মিষ্টি করেইনা তুমি কথা বলো
একবার শুনেই মন ভরেনা, মন চায়
আজীবন বসে বসে শুনি তোমার কথামালা।
জ্যোস্না রাতে ঘরে কিছুতেই মন বসেনা
চলে যাই বাহিরে, পলকহীন দৃষ্টিতে
তাকিয়ে থাকি ঐ ফুঁটফুঁটে চাঁদটির দিকে।
মনে মনে ভাবি; এমনি একটি চমৎকার সময়
তুমি যদি থাকতে আমার পাশে
আর ঐ চাঁদটির দিকে তাকিয়ে, আমাকে
শুনাতে তোমার জীবনের না বলা গল্পগুলো।
আমি প্রানভরে শুনে নিতাম
তোমার জীবনের শ্রেষ্ট কথাগুলো।
ভালোলাগা ভালবাসার ফুটফুটে ঐ চাঁদটির  
দিকে তাকিয়ে মনের প্রচন্ড আবেগে
তোমার দুটো হাত শক্ত করে ধরে
জড়িয়ে নিতাম আমার এই শুন্য বুকে।
তোমায় আমি  যেতে দিতামনা
তোমার উর্বর ভূমিতে খুঁজে নিতাম আমার ঠিকানা।
তোমার আবৃতির ভঙ্গি এবং উচ্চারণ
খুবই স্বচ্ছ, প্রানবন্ত ও অসাধারণ।
কি চমৎকার করেইনা তুমি
জীবন্ত করে তোলো যেকোনো ধরনের কবিতাকে।
তোমার সাবলীলতা, বাচন ভঙ্গি, উচ্চারণ
কবিতাকে উচ্চতম শিল্প মর্যাদায় করে সমাসীন।
রবীন্দ্র সঙ্গীত আমার খুবই প্রিয়
আমি বহুবার একরাশ মুগ্দতায় শুনেছি
তোমার প্রানখোলা সুদক্ষ পরিবেশনা।
অপূর্ব কোনো এক জ্যোস্না রাতে
অথবা ঝিরিঝিরি বৃষ্টি ঝরা বাদল রাতে
তোমার গাওয়া রবীন্দ্র সঙ্গীত
বিরামহীন শুনে যেতে প্রচন্ড ইচ্ছে করছে।
তোমার কথামালা এবং রবীন্দ্র সঙ্গীত
আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ বরণমালা
হয়ে থাকবে কিনা জানিনা;
তবে আমার জীবনের পরম আখাংকা
এবং পূর্ণতা সেখানেই সীমাবদ্ধ।
=================
১০ জানুয়ারী ২০১৬
ভার্জিনিয়া, ইউ এস এ
সর্বশেষ আপডেট ( শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ )