অটোয়াতে জাতীয় শহীদ দিবস পালিত
নিউজ-বাংলা ডেস্ক   
বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪
অটোয়া থেকে নিজস্ব সংবাদদাতাঃ জাতীয় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসটি স্বদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যেমন যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালিত হয়েছে, তেমনি বহির্বিশ্বে প্রবাসী বাঙালীরা যেখানেই তার নিবাস গড়েছে, সেখানেই স্থায়ী ও অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পাঞ্জলী অর্পণের মধ্য দিয়ে দিনটি মর্যাদার সাথে উদ্যাপন করেছে।
পাশ্চাত্যের শীত প্রধান শুভ্র বরফঢাকা দেশ কানাডা; সেখানেও বিভিন্ন শহরে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে সেই হৃদয় বিক্ষত চেতনাময়ী দিবসটি। মহান এই দিনটিকে পালনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রচ- শৈত প্রবাস উপেক্ষা করে গত ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখ, শনিবার, ৩০০ দেস পেরেস-ব্লান্স এভিনিউ এর রিসেলিউ-ভ্যানিয়ার কমিউনিটি সেন্টার-এ সন্ধ্যা ৬ টা ৩০ মিনিট-এ অটোয়াস্ত বাংলাদেশ হাইকমিশন এর আয়োজনে অনুষ্টিত হয় এক আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্টান। অনুষ্টানে মন্ট্রিয়ল সহ বিভিন্ন শহর থেকে বাংলাদেশীরা এসে অংশ গ্রহণ করেন। সভায় প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করেন কানাডার পার্লামেন্ট মেম্বার মেথিও ক্যালওয়ে। এবং অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সভায় উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্টানের শুরুতেই মহান শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অতঃপর পবিত্র কোরআন তেলাত শেষ হলে, মান্যবর রাষ্ট্রদূত এর বক্তব্যের মধ্যদিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়। আলোচনায় এম.পি. মিঃ মেথিও ক্যালওয়ে বলেন তাঁর দল এনডিপি প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে মহান একুশে ফেব্রুয়ারিকে কানাডায় সরকারী ভাবে পালনের বিল পাশ করার জন্য। অনুষ্টানের দ্বিতীয়ার্ধে রাহাত বিন জামান এবং দেওয়ান মাহমুদুল হক এর স ালনায় চমৎকার সাংস্কৃতিক অনুষ্টানে ছিলো দেশাত্ববোধক গান, নৃত্য ও কবিতা আবৃত্তি। অনুষ্টানটি স্থানীয় শিল্পী-কলাকোশলী এবং শিশু-কিশোরদের অংশ গ্রহণে সফল হয়েছে। সভা শেষে মান্যবর রাষ্ট্রদূত-এর পরিবারের পক্ষ থেকে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। অনুষ্টানটির সার্বিক দায়িত্বে ও তত্বাবদানে ছিলেন বাংলাদেশ হাইকমিশন-এর কর্মকর্তাবৃন্ধ। বিজ্ঞপ্তি।
সর্বশেষ আপডেট ( সোমবার, ০৭ জুলাই ২০১৪ )