বোস্টনে ফেব্রুয়ারি মাসে ‘স্বাধীনতা দিবস’ পালন
সাবেদ সাথী, ব্যুরো চিফ   
মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪
নিউইংল্যান্ড থেকে: যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের বোস্টনস্থ বাংলাদেশ অ্যাসোশিয়েশন অব নিউইংল্যান্ড (বেইন) ফেব্রুয়ারি মাসে স্বাধীনতা দিবস পালন করে নতুন রেকর্ড গড়েছেন। আর এ ঘটনায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে। 
একুশে ফেব্রুয়ারির সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ ও শহীদ বেদীতে ফুল দিতে আসা প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছে থেকে প্রবেশ মুল্য আদায় এবং শোকের মাস ফেব্রুয়ারিতে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করে স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছে ব্যাপক সমালোচনার মুখোমুখি হন। বেইনের নতুন কমিটির আয়োজনে এটাই ছিল প্রথম অনুষ্ঠান। গোড়ায় গলদের এ অনুষ্ঠান গত ২২ ফেব্রুয়ারি বোস্টনের পার্শ্ববর্তী মেডফোর্ডের স্কুলে অনুষ্ঠিত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের সর্বপ্রাচীন ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিজড়িত বাংলাদেশিদের সামাজিক সংগঠন বেইন-এর অনুষ্ঠানে এমন ঘটনা পুর্বে ঘটেছে কিনা কারও জানা নেই। তবে বিশ্বের কোথাও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে শহীদ বেদীতে ফুল দিতে আসা ও একুশে ফেব্রুয়ারির সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করার জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছে থেকে প্রবেশ মুল্য আদায় করা হয়নি তা নিশ্চিত করেই বলা যায়। এছাড়াও ফেব্রুয়ারি মাসে বিশ্বের কোথাও কেউ বা কোন সংগঠন স্বাধীনতা দিবস পালন করেনি। কিন্তু বোস্টনস্থ বেইন-এর নতুন কার্যকরি কমিটি এমন দুটি ঘটনা ঘটিয়ে বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন। এ নিয়ে বোস্টনের প্রবাসীদের মাঝে চলছে নানা গুঞ্জন। নতুন এ কমিটিকে নির্বাচনের আগে থেকেই পরামর্শ ও সহযোগিতা করছিলেন প্রায় ৩/৪ জন সাবেক সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক। তারপরও কীভাবে এমন ধরনের ঘটনা ঘটেছে এমন এক প্রশ্নের জবাবে (নাম প্রকাশ না করার শর্তে) বোস্টনের জনৈক প্রবীন ব্যক্তি ও বেইনের সাবেক কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এ প্রতিনিধিকে বলেন, আমরা আমেরিকায় বাস করি বলেই এখানে কেউ কাউকে তোয়াক্কা করে না। বাংলাদেশ হলে কেউ কি ফেব্রুয়ারি মাসে স্বাধীনতা দিবস পালন করতে পারতো? তাদের এ ধরনের স্পর্ধা দেখে শুধু অবাকই হতে হয় না, এটা মহান স্বাধীনতার চেতনাকে বিসর্জনও বটে। এতে করে নতুন প্রজন্ম কি শিক্ষা পেল? তারা জানলো ২২শে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস! স্বাধীনতার ইতিহাসকে ভুলন্ঠিত করার স্পর্ধা তাদেরকে কে দিয়েছে বা তারা কোথায় পেয়েছে? তিনি আরও বলেন, বোস্টনে উচ্চ শিক্ষিত লোকেরাই বসবাস করেন। বেইনের কমিটিতেও রয়েছে অনেক শিক্ষিত ব্যক্তি অথচ তারা নিজের ইচ্ছেমত বা নিজেদের জেদ মেটানোর জন্যই এমন কাজটি করেছেন। কথায় বলে, যে যায় লঙ্কায় সেই হয় হনুমান। তাই এদেরকে ভালো পরামর্শ দিয়ে কোন লাভ নেই। তার চেয়ে চুপ থাকাই ভালো। কেন ফেব্রুয়ারিতে স্বাধীনতা দিবস পালন করা হলো এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটার অন্য কোন কারন নেই, মুলত অর্থ সাশ্রয় করাই ছিল মুল লক্ষ্য। কিন্তু তাদের এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া মোটেই ঠিক হয়নি। আবার এদিকে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানে যেভাবে ৫ ডলার করে প্রবেশ মুল্য আদায় করা হয়েছে, এটি তাদের আরেকটি ভুল। কারন এটা কোন কনসার্ট না। এটি বাংলাদেশে জাতীয় শোক দিবস। শুধু শোক দিবসই নয়, স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসেও কোন প্রবেশ মুল্য নির্ধারন করা ঠিক নয়। এসকল জাতীয় দিবস এবং সার্বজনীন। এসব দিনের অনুষ্ঠানগুলোতে প্রবেশ অবাধ থাকাই ভালো। তিনি মনে করেন বিশ্বের কোথাও ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানে প্রবেশ মুল্য এবং ফেব্রুয়ারিতে স্বাধীনতা দিবস পালন করা হয়নি।
সর্বশেষ আপডেট ( সোমবার, ০৭ জুলাই ২০১৪ )