News-Bangla - নিউজ বাংলা - Bangla Newspaper from Washington DC - Bangla Newspaper

১৬ জানুয়ারী ২০১৮, মঙ্গলবার      
মূলপাতা arrow খবর arrow প্রবাস arrow বাংলাদেশী তরুণকে নিয়ে নিউইয়র্ক টাইমস’র প্রতিবেদন
বাংলাদেশী তরুণকে নিয়ে নিউইয়র্ক টাইমস’র প্রতিবেদন প্রিন্ট কর
নিউজ-বাংলা ডেস্ক   
বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭
সিনেটর হোজে প্যারেলটাকে চ্যালেঞ্জ করবেন ১৮ বছরের তাহসীন

নিইইয়র্ক সিটিতে বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত তাহসীন চৌধুরী এখন যুক্তরাষ্ট্রের মুলধারার রাজনীতির ‘কিশোর তারকা’ হিসেবে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুৃতে পরিণত হয়েছেন। তাহসীন চৌধুরী ইস্ট এলহার্স্টর বাসিন্দা। নিউইয়র্ক সিটির অভিজাত পাবলিক স্কুল স্টাইভেসেন্ট স্কুলের ছাত্র। এর বাইরে তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও কল্যাণমূলক কর্মকান্ডে ব্যাপৃত রেখেছেন নিজেকে।  তাহসীন চৌধুরীর বয়স ১৭ বছর। গত ২৯ অক্টোবর বিশ্ববিখ্যাত দ্য নিউইয়র্ক টাইমস ‘টু ইয়াং ট্র ভোট / বাট আসকিং ফর ইওরস’ শিরোনামে তাকে নিয়ে একটি রিপোর্ট করেছে।
রিপোর্ট বলা হয়: তাহসীন চৌধুরী স্টাইভেসেন্ট স্কুলের স্টুডেন্ট গভর্নর এবং ম্যানহাটান বরো প্রেসিডেন্ট স্টুডেন্ট এডভাইজারী কমিটির উপদেষ্টা. পড়ালেখার বাইরে সে ইতোমধ্যেই দু’টি কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করেছেন. এর অন্যতম হচ্ছেন ইভেন্ট ফটোগ্রাফী এবং কম্পিউটার প্রোগামিং ও ইঞ্জিনিয়ারি. কলেজে আবেদনের সময় অন্য জায়গায় সুবিধা থাকার পরও তিনি তার বসতি ইস্ট এলমাস্ট এলাকা ছাড়তে চানননা. নিউইয়র্ক স্টেট এসেম্বলীতে চ্যালেঞ্জ ছুৃড়তে চান অত্র এলাকার বর্তমান স্টেট সিনেটর হোজে পরেলটার বিরুদ্ধে. হোজে পরেলটা দীর্ঘদিন থেকে স্টেট সিনেটর হিসেবে কাজ করেছেন. নিজে বিজয়ী হলে নিজের পড়াশুনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জানুয়ারী থেকে জুন পর্যন্ত স্টেট এসেম্বলীর সেশনে আমি কলেজ স্ক্যাজুয়াল বসন্ত বা স্প্রীংয়ে নেবোনা. এরপর শরতে আমি ক্লাশ নেবো. তিনি বলেন, আমার ক্লাশ এমনভাবে নিতে হবে যাতে যা স্টেট এসেম্বলী সেশনের সাথে কোন ধরনের বাঁধা হয়ে না দাড়ায়.
ক্যানসাস অঙ্গরাজ্যে 16 বছর বয়সী দুই তরুন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন. আগামী বছরের নির্বাচনে তারা ডেমোক্রেট হিসেবে গভর্নর পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে চান.
 আগামী বছরের শরতে স্টেট সিনেটর হোজে প্যারেলটাকে চ্যালেঞ্জ করতে চান বাংলাদেশী-আমেরিকান তাহসীন. নিউইয়র্ক স্টেটে নির্বাচনের জন্য 18 বছর বয়স হতে হয়. এই হিসেবে আগামী প্রাইমারীর আগেই তাহসীন 18 বছর বয়সে উত্তীর্ণ হবে না.
তাহসীনের বাবা মা’র জীবন হচ্ছে একটি ইমিগ্র্যান্ট পরিবারের বেঁচে থাকার সত্যিকার উদাহরণ. বাবা আফসার চৌধুরী কাজ করেন একটি ডেলীতে এবং মা সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সার্কুলেশন বিভাগে কাজ করেছেন.
তাহসীন বলেন, মি. হোজে প্যারেলটা একজন স্বতন্ত্র ডেমোক্রেট হিসেবে তাদের কনফারেন্সে যোগদান করে ডোমোক্রটিক চরিত্রকে প্রশ্ববিদ্ধ করেছেন. এটা ডেমোক্রেডেটদের মধ্যে ভাঙ্গনের সূচনা করেছে. যাতে লাভবান হচ্ছে রিপালিকানরা. এজন্য নতুনদের নেতৃত্বে ডেমোক্রটিক পার্টিকে সংগঠিত করতে হবে.
সর্বশেষ আপডেট ( বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ )
 

Add comment


Security code
Refresh

< পূর্বে   পরে >
Free Joomla Templates