News-Bangla - নিউজ বাংলা - Bangla Newspaper from Washington DC - Bangla Newspaper

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার      
মূলপাতা arrow রান্নাঘর arrow জার্মানিতে নিরামিষের জনপ্রিয়তা বাড়ছে
জার্মানিতে নিরামিষের জনপ্রিয়তা বাড়ছে প্রিন্ট কর
রায়হানা বেগম, জার্মানি থেকে   
মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০১৫

গত কয়েক দশক আগেও চিত্রটা ছিল ভিন্ন রকম৷ স্বচ্ছল পরিবারগুলোতে খাদ্যতালিকায় মাছ-মাংসের আধিক্য লক্ষ করা যেত৷ মনে করা হত শাকসবজি তো বটেই এমনকি মাছও গরিবের খাবার৷ তবে যুগের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের মন মানসিকতা ও জ্ঞানেরও প্রসার ঘটেছে৷ বেশি মাংস খাওয়া যে ভালো নয় সেটা বুঝতে পারছেন অনেকেই৷ সেই সঙ্গে পশু পাখির প্রতি মায়া মমতাও বৃদ্ধে পাচ্ছে৷ জার্মানির প্রায় সব রেস্তোঁরায় নিরামিষ খাবার পাওয়া যায় এখন৷ আগে নিরামিষ খাবার চাইলে বিস্মিত দৃষ্টিতে তাকাতেন ওয়েটার৷ আর এখন ফাস্ট ফুডের রেস্তোঁরাগুলোও পিছিয়ে নেই৷ সেখানেও স্যালাদ, ভেজিবার্গার ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে৷

মাংস খাওয়া কমানোর পেছনে নানান কারণ রয়েছে৷ বিভিন্ন মিডিয়ায় পুরানো বা পচামাংস বিক্রির খবর উঠে আসে মাঝে মধ্যে৷ এজন্য অনেক জার্মান মাংস থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন৷ এছাড়া বিভিন্ন গবেষণা ও সমীক্ষা থেকে জানা যায় উচ্চরক্তচাপ, বহুমূত্র ও হৃদরোগের মতো অসুখও দেখা দেয় বেশি রেডমিট খেলে৷

পশু পাখির প্রতি মায়া মমতা থেকেও অনেকে মাংস খাওয়া ছেড়ে দেন৷ প্রাণী হত্যা করার আগে স্বল্প পরিসরের খাঁচায় আটকে রাখা হয়৷ ঠাঁসাঠাঁসি করে থাকায় রক্তাক্ত ও ক্ষতবিক্ষত হতে হয় তাদের৷ এসব কারণেও অনেকে মাংস থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন৷

নিরামিষাশী হওয়ার আরেকটি কারণ হল পরিবেশ সংরক্ষণ৷ নিরামিষের তুলনায় মাংস উৎপাদনে খরচ হয় অনেক বেশি৷ দূষিত হয় পরিবেশ৷ তাই এই দৃষ্টিকোণ থেকেও শাকসবজির দিকে ঝোঁকেন অনেকে৷
প্রায় ৪২ মিলিয়ন জার্মান মাঝে মাঝে মাংস খাওয়া বাদ দেন৷ রান্না করেন শাক-সবজি ও তরকারি৷ শাক-সবজির ব্যাপারে যে মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে তা বোঝা যায় নিরামিষসংক্রান্ত ইন্টারনেট ফোরাম, ব্লগ ও রান্নার বইয়ের ছড়াছড়ি দেখে৷ চারিদিকে গড়ে উঠছে নিরামিষাশীদের সংগঠন৷ তারা ‘ভেজিটেরিয়ান ডে’ অর্থাৎ সপ্তাহে অন্তত একদিন বিভিন্ন রেস্তোঁরা, স্কুল ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ক্যান্টিনে শুধু নিরামিষ খাবার পরিবেশন করার প্রস্তাব দিচ্ছেন৷

সবুজ দল প্রস্তাবটি লুফে নিলেও বিরুদ্ধবাদীদের কন্ঠও এব্যাপারে সোচ্চার৷ তারা খাবারের ওপর খবরদারি করাটা পছন্দ করেন না৷ এক্ষেত্রে জার্মানদের মধ্যে দুই ধরনের মানসিকতা গড়ে উঠছে৷ একদল আদর্শ ও প্রাণীর প্রতি মায়া মমতা থেকে মাছ-মাংস বর্জন করেন এবং অন্যদেরও ‘পথে’ আনতে চান৷ আরেক দল খাবারের ব্যাপারে অন্যের নাক গলানো পছন্দ করেন না৷ তবে জার্মানির অধিকাংশ মানুষ মোটামুটি একমত যে বেশি মাংস খাওয়া ভালো নয়৷ নিরামিষ স্বাস্থ্য, প্রাণী ও পরিবেশের জন্য মঙ্গলজনক৷

জার্মানির ছয় মিলিয়ন বা ৬০ লক্ষেরও বেশি মানুষ পুরাপুরি নিরামিষভোজী৷ মাছ মাংস কিছুই খান না৷ অনেকে তো এক্ষেত্রে আরেক ধাপ এগিয়ে৷ মাছ-মাংস দূরে থাক, প্রাণীজাত কোনো খাদ্যদ্রব্য যেমন দুধ, পনির, মাখন, ডিম ইত্যদিও ছুঁয়ে দেখেন না৷ যাদের বলা হয় ভেগান৷ ভেজিটেরিয়ানরা হলেন নিরামিষাশী৷ আর ভেগানরা উদ্ভিদভোজী।
রান্না-বান্নায় প্রাণীজাত তেল কিংবা দুধও ব্যবহার করেন না তারা৷ এদের সংখ্যাও একেবারে কম নয়৷ ছয় লাখের মতো হবে জার্মানিতে৷ অবশ্য পুরোপুরি আমিষবর্জিত খাবার খেলে ভিটামিনের ঘাটতি দেখা দেয় বলে মনে করেন চিকিত্সকরা৷

জার্মানির বিশ্ববিদ্যালগুলোও পিছিয়ে নেই এক্ষেত্রে৷ অনেক বিদেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছেন এইসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে৷ তাই খাবারদাবারে এসেছে আন্তর্জাতিক ছোঁয়া৷ মুসলমানদের জন্য রয়েছে শুয়োরের মাংস বর্জিত খাবার৷ কয়েক দশক আগেও মসলা বলতে বোঝাতো লবণ, গোলমরিচ কিংবা পেঁয়াজ৷ আর এখন ইউরোপের বিভিন্ন দেশ, এশিয়া, আফ্রিকা ও ল্যাটিন অ্যামেরিকার খাবারের স্বাদও পাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা৷ ‘মাদ্রাস কারি’, ‘থাই ভেজিটেবল’, ‘ফানেন গিরস’ ইত্যাদি খাবারের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন৷

বিশেষ করে স্যালাদ বারের বর্ণবৈচিত্র্য চোখে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যান্টিনগুলিতে৷ সেখানে শুধু কাঁচাটমেটো, শমা ও গাজরের সমারোহই নয়, থাকে রান্না করা নানানরকম তরিতরকারি ও মুখোরোচক ভেগান ডিশ৷ মাংসের অভাব অনায়াসে ভুলিয়ে দেয় এইসব খাবার৷


 
সর্বশেষ আপডেট ( মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০১৫ )
 
< পূর্বে   পরে >
Free Joomla Templates